প্রশ্নোত্তর-ফাতাওয়াসিয়াম-রোযা

“রমাদান কারীম” বলা যাবে কি?

প্রশ্ন: “রমাদান কারীম” অভিবাদনটি কি সঠিক?

উত্তর: “রমাদান কারীম” অভিবাদনটি আরবসহ বিভিন্ন দেশে ব্যাপকভাবে প্রচলিত। আমাদের দেশেও অনেককে এটি বলতে দেখা যায়। কোনো কোনো বিজ্ঞ আলেম ‘রমাদান কারীম’ এইঅভিবাদনটি বলতে নিষেধ করেন। কেননা, কারীম অর্থ দয়ালু, দাতা, মহানুভব, উদার। তারা বলেন মাস কখনো দয়ালু ও উদার হতে পারে না। তবে আমি মনে করি, কারীম শব্দের বর্ণীত অর্থগুলোর বাইরে আরো একটি অর্থ আছে, সেটি হলো, “সম্মানিত”। যদি এই অর্থটি নেয়া হয় তাহলে “রমাদান কারীম” বলাতে কোনো আপত্তি থাকে না। কেননা রমাদান একটি সম্মানিত মাস। আল্লাহ্‌ তাআলা এই মাসকে সম্মান ও শ্রেষ্ঠত্ব দান করেছেন। তবে যেহেতু হাদীসে রমাদান মাসকে কোথাও কারীম বলা হয় নি। তাই উত্তম হবে এ মাসকে রমাদান কারীম না বলে রমাদান মোবারক বা বরকতময় মাস বলা। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামও এ মাসকে ‘বরকতময় মাস’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। যেমন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন:
أَتَاكُمْ رَمَضَانُ شَهْرٌ مُبَارَكٌ، فَرَضَ اللّٰهُ عَلَيْكُمْ صِيَامَه
“তোমাদের জন্য রমাদান-বরকতময় মাস এসেছে। এ মাসে আল্লাহ তোমাদের জন্য রোযাকে ফরয করেছেন।” (নাসায়ী-২১০৬, ইবনু আবী শাইবাহ্-৮৮৬৭, আহমাদ ৭১৪৮, আত্ তারগীব-৯৯৯, সহীহ আল জামে-৫৫, শু‘আবূল ঈমান-৩৩২৮)

আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button
Close