নারী অঙ্গনপ্রশ্নোত্তর-ফাতাওয়া

স্বামী মারা গেলে স্ত্রীর করণীয় আমল

প্রশ্ন: স্বামী মারা গেলে স্ত্রীর করণীয় কি? কুরআন-হাদীস মোতাবেক জানতে চাই।

উত্তর: স্বামী মৃত্যুবরণকারী নারীর ইদ্দতের সময়সীমা হলো ৪মাস ১০দিন। এ সময়টিতে স্ত্রীর করণীয় সম্পর্কে হাদীসে যা এসেছে তা মোটামুটি এই:

এক. বিধবা নারী নিজের শরীরে কিংবা কাপড়ে কোনো প্রকার সুগন্ধি ব্যবহার করবে না, অনুরূপভাবে সুগন্ধিযুক্ত বস্তুও ব্যবহার করবে না।

দুই. বিধবা নারীর কোনোরুপ সাজসজ্জা গ্রহণ করবে না, যেমন খিযাব ও অন্যান্য রূপচর্চার প্রসাধনী।

তিন. বিধবা নারী সুরমা ব্যবহার করবে না। শরীরের তক রঙ্গিনকারী রঙ ব্যবহার করবে না।

চার. বিধবা নারীর জন্য সাজসজ্জার কাপড় পরিধান করা হারাম। সাধারণ কাপড় পড়বে।

পাঁচ. বিধবা নারীর জন্য সকল প্রকার অলঙ্কার পরিধান করা হারাম, এমন কি আঙ্কটি পর্যন্তও।

উল্লেখ্য যে, ইদ্দতের সময় শেষ হয়ে গেলে এ নিষেধাজ্ঞা আর বলবৎ থাকবে না। তখন সব ধরণের অংলংকার পরিধান ও সাজসজ্জা গ্রহণ করতে পারবে।

দলীলসমূহ:

আল্লাহ্‌ তাআলা বলেন,

وَالَّذِينَ يُتَوَفَّوْنَ مِنكُمْ وَيَذَرُونَ أَزْوَاجًا يَتَرَبَّصْنَ بِأَنفُسِهِنَّ أَرْبَعَةَ أَشْهُرٍ وَعَشْرًا ۖ فَإِذَا بَلَغْنَ أَجَلَهُنَّ فَلَا جُنَاحَ عَلَيْكُمْ فِيمَا فَعَلْنَ فِي أَنفُسِهِنَّ بِالْمَعْرُوفِ ۗ وَاللَّهُ بِمَا تَعْمَلُونَ خَبِيرٌ

“আর তোমাদের মধ্যে যারা মৃত্যুবরণ করবে এবং নিজেদের স্ত্রীদেরকে ছেড়ে যাবে, তখন সে স্ত্রীদের কর্তব্য হলো নিজেকে চার মাস দশ দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করিয়ে রাখা। তারপর যখন ইদ্দত পূর্ণ করে নেবে, তখন নিজের ব্যাপারে নীতি সঙ্গত ব্যবস্থা নিলে কোন পাপ নেই। আর তোমাদের যাবতীয় কাজের ব্যাপারেই আল্লাহর অবগতি রয়েছে”। (সূরা আল বাকারা-২৩৪)

عَنْ أُمِّ عَطِيَّةَ، أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: «لَا تُحِدُّ الْمَرْأَةُ فَوْقَ ثَلَاثٍ إِلَّا عَلَى زَوْجٍ، فَإِنَّهَا تُحِدُّ عَلَيْهِ أَرْبَعَةَ أَشْهُرٍ وَعَشْرًا، وَلَا تَلْبَسُ ثَوْبًا مَصْبُوغًا، إِلَّا ثَوْبَ عَصْبٍ، وَلَا تَكْتَحِلُ، وَلَا تَمَسُّ طِيبًا إِلَّا أَدْنَى طُهْرَتِهَا إِذَا طَهُرَتْ مِنْ مَحِيضِهَا بِنُبْذَةٍ مِنْ قُسْطٍ، أَوْ أَظْفَارٍ

উম্মে আতিয়্যা রাঃ হতে বর্ণিত।রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন, কোন স্ত্রীলোক স্বামী ব্যতিত অন্য কারো মৃত্যুতে তিন দিনের অধিক শোক প্রকাশ করবে না। অবশ্য স্বামীর মৃত্যুতে চার মাস দশদিন শোক পালন করবে। আর এ সময় কোন রঙ্গিন কাপড় পরিধান করবে না। সাদা কাপড় ছাড়া। আর সুরমা ব্যবহার করবে না, এবং কোনরূপ সুগন্ধি দ্রব্য ব্যবহার করবে না। অবশ্য হায়েজ হতে পবিত্র হওয়ার পর সামান্য সুগন্ধি বস্তু ব্যবহার করতে পারে। (বুখারী-৩১৩, মুস্লিম-৯৩৮, আবূ দাউদ-২৩০২, নাসাঈ-৩৫৩৪)

১- উম্মে হাবীবা রাযি. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন,

أني سمعت رسول الله ﷺ يقول : لا يحل لامرأة تؤمن بالله واليوم الآخر أن تحد على ميت فوق ثلاث إلا على زوج فإنها تحد عليه أربعة أشهر وعشرا

আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াস্ললামকে বলতে শুনেছি যে, আল্লাহ এবং পরকালে বিশ্বাসী কোনো নারীর জন্য তার স্বামী ব্যতীত অন্য কারো মৃত্যুতে তিন দিনের বেশি সময় হিদাদ (শোক ও সাজসজ্জা করা) বৈধ নয়। আর স্বামীর মৃত্যুতে ৪ মাস ১০ দিন হিদাদ পালন করবে। (বুখারী-১২৮০, মুসলিম-১৪৮৬)

২- উম্মে সালামা রাযি. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন,

عن النبي ﷺ أنه قال ” المتوفى عنها زوجها لا تلبس المعصفر من الثياب ولا الممشقة ولا الحلي ولا تختضب ولا تكتحل

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াস্ললাম বলেছেন, যে স্ত্রী লোকের স্বামী মৃত্যুবরণ করে সে যেন ইদ্দতকালীন সময়ে রঙিন এবং কারুকার্যমণ্ডিত কাপড় ও অলংকার পরিধান না করে। আর সে যেন খিযাব ও সুরমা ব্যবহার না করে। (আবু দাউদ-২৩০৪, নাসাঈ-৩৫৩৫, আহমদ-২৬৬২৩)

আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button
Close